সম্মানিত গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। আমি কি আপনার সম্পর্কে একটু জানতে পারি?আপনি কি অনিয়ন্ত্রিত সহবাস করেছেন?পিল ব্যবহার করিনি বলতে কি সহবাসের সময় কোন কনডম ব্যবহার করেননি বুঝিয়েছেন? যে সকল মহিলার প্রতিমাসে মাসিক হয় সাধারণত ধরে নেয়া হয় তাদের মাসিক শুরু হবার ১০ থেকে ১৮তম দিনের যেকোনো ১ দিন ডিম্বাশয় থেকে ১টি পরিপক্ক ডিম্বাণু নিঃসরিত হয়। ডিম্বাণুটি নিঃসরণের পর মাত্র ১ দিন সময় থাকে তা নিষিক্ত হবার জন্য। এ কারণে কেউ যদি ঐ সময়ে দৈহিক মিলন থেকে বিরত থাকেন তবে তার সন্তান ধারণের সম্ভাবনা কম থাকে।অন্যভাবে বলা যায় মাসিক শুরু হবার পর থেকে পুরো সময়টিকে ৩ ভাগে ভাগ করে গড়ে মাঝের ১০ দিন দৈহিক মিলন থেকে বিরত থাকলে তা জন্মনিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে। ১ম ১০ দিন এবং শেষ ১০ দিন সময় নিরাপদ। তবে অনিয়মিত মাসিকের ক্ষেত্রে এটি প্রযোজ্য নয়।ডিম্বস্ফোটনের ৭ দিনব্যাপী সময়ের মধ্যে স্বামীর সঙ্গে মিলন হলে একজন স্ত্রীর গর্ভবতী হবার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশী। সাধারণত শেষ মাসিকের ১২ দিন পর এই সময় আসে।একটি ডিম্বাণু ডিম্বাশয় থেকে নির্গত হওয়ার পর ১২ থেকে ২৪ ঘন্টা পর্যন্ত জীবিত থাকে। গর্ভধারণের লক্ষ্যে এ সময়ের মধ্যেই ডিম্বাণুটিকে শুক্রাণুর সাথে মিলিত হতে হবে। এমন কোন কথা নেই যে যেই দিন ডিম্বস্ফোটন হয় শুধু সেই দিন মিলিত হলেই আপনি গর্ভবতী হতে পারবেন। একজন নারীর শরীরে শুক্রাণু ২-৩দিন পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে। এই কারণে ডিম্বস্ফোটনের ২-৩ দিন আগে মিলন হলেও শুক্রাণুটি ডিম্বাণুর জন্যে ডিম্বনালীর ভেতর অপেক্ষা করে থাকতে পারে।আর ১টি ডিম্বানুকে নিশিক্ত করতে একটি শুক্রানুই যথেস্ট।গ্রাহক, আপনার পিরিয়ড মিস হওয়ার প্রথম দিন থেকেই আপনি প্রেগন্যান্সি টেস্ট করতে পারবেন। যদি আপনার পিরিয়ড নিয়মিত হয় তবে আপনি জানেন যে এই সময়টা কখন। যদি আপনি জানেন না যে আপনার পরবর্তী পিরিয়ড কখন হবে তবে আপনি অনিরাপদ সহবাসের ২১ দিন পর প্রেগন্যান্সি টেস্ট করতে পারেন। এই টেস্ট কিট এর দাম বিভিন্ন ব্র্যান্ডের বিভিন্ন হয়।তা ৭০ -১৫০/ টাকার মধ্যে হবে। প্রেগনেন্সি কিট দিয়ে প্রেগনেন্সি টেস্ট করা খুব সহজ একটা পদ্ধতি। এজন্য নীচের নিয়মাবলী অনুসরণ করুন।যেমন :- টেস্ট কিট কেনার সময় ভাল ব্র্যান্ডের কিট কিনুন। এবং মেয়াদ উত্তির্নের তারিখ দেখে কিনুন। - সকালের প্রথম ইউরিন দিয়ে পরীক্ষাটি করুন - সকালে কিছু খাওয়া বা পান করার আগে টেস্ট করুন। - আপনাকে একটা কাপে বা পাত্রে সকালের প্রথম প্রস্রাব সংগ্রহ করতে হবে। - এবার প্রেগনেন্সি টেস্ট কিটের মধ্যে যে দুটা দাগ দেয়া থাকে (মধ্যখান বরাবর) সেই পর্যন্ত প্রস্রাবে ডুবিয়ে রাখতে হবে ২-৫ মিনিট। - আর ডিজিটাল ক্যাসেট স্ট্রিপ হলে সেটির এক পাশে যে ছিদ্র আছে সেটিতে স্ট্রিপের সাথে দেয়া ড্রপার এর সাহায্যে ৪/৫ ফোঁটা পস্রাব দিয়ে ২ মিনিট অপেক্ষা করুন। - যদি যে দুটি দাগ থাকে স্ট্রিপের গায়ে সে দুটিই গোলাপী রং ধারণ করে তাহলে প্রেগনেন্ট আর শুধু একটি রং গোলাপী দেখা গেলে প্রেগনেন্ট নয়।পাশাপাশি আপনি একজন মহিলা রোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি।আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন,রয়েছে পাশে সবসময়,মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও