প্রিয় গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।সাধারণত চুলকানির সঙ্গে মলদ্বারে ভেজা ভেজা ভাব ও জ্বালাপোড়া হতে পারে। এমনকি মলদ্বার লাল হয়ে যেতে পারে। অধিকাংশ চুলকানির জন্য চিকিৎসার প্রয়োজন হয় না। সাধারণত ঘরে বসে কিছু নিয়ম মেনে চললেই চুলকানি থেকে রেহাই পাওয়া যায়। যেমন-১. অ্যালার্জি হয় এমন খাবার এড়িয়ে চলা।২. মলত্যাগ ও অতিরিক্ত ঘামের পর মলদ্বার ধুয়ে-মুছে পরিষ্কার ও শুষ্ক রাখা।৩. সুতি কাপড়ের ঢিলাঢালা অন্তর্বাস ব্যবহার করা।৪. রঙিন, সুগন্ধিযুক্ত ও খসখসে টয়লেট পেপার ব্যবহার না করা।৫. সুগন্ধি সাবান ব্যবহার না করা।কখন চিকিৎসকের কাছে যাওয়া উচিত:তবে মলদ্বারে চুলকানি হলেই তা অবহেলা করা উচিত নয়। কিছু কিছু ক্ষেত্রে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া উচিত। চিকিৎসকের কাছে যাওয়া প্রয়োজন এমন উপসর্গগুলো হল-১. চুলকানির তীব্রতা বেশি হলে ও সবসময় চুলকানি থাকলে।২. যদি চুলকানির সঙ্গে রক্ত যায়।৩. চুলকানি থেকে সংক্রমণ (ইনফেকশন) ঘটলে।৪. মলদ্বারে চাকা থাকলে।এসব উপসর্গ থাকলে দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়ে চুলকানির কারণ অনুযায়ী চিকিৎসা নেওয়া উচিত। চিকিৎসকের যথাযথ পরামর্শ এবং নিজের যত্ন নিয়ে বেশিরভাগ রোগী মলদ্বারের চুলকানি থেকে সম্পূর্ণ মুক্তি পেতে পারেন।আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি।আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন,রয়েছে পাশে সবসময়,মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও