গ্রাহক,ধন্যবাদ। মানুষ তাদের যৌন শক্তি লাভ করে থাকে তাদের খাবার দাবার থেকেই। প্রকৃত কোন সমস্যা না থাকলে আপনার যৌন শক্তি বৃদ্ধির জন্য কোন প্রকার ঔষধের প্রয়োজন নেই, তার জন্য দৈনন্দিন পুষ্টিকর খাবার দাবারই যথেষ্ট। যৌন শক্তি বৃদ্ধি করে এমন কিছু খাবার ডিমঃডিম যৌন স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী একটি খাবার। ডিমে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে যা শরীরের হরমোনের কার্যক্রম ঠিক রাখে এবং মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে। দুধঃখাঁটি দুধ, দুধের সর, মাখন ইত্যাদি খাবারে প্রচুর পরিমাণে প্রাণিজ-ফ্যাট আছে যা যৌন শক্তি বাড়াতে অত্যন্ত সহায়ক। কলাঃকলার রয়েছে ভিটামিন এ, বি, সি ও পটাশিয়াম। ভিটামিন বি ও পটাশিয়াম মানবদেহের যৌনরস উত্‍পাদন বাড়ায়। আর কলায় রয়েছে ব্রোমেলিয়ানও। যা শরীরের টেস্টোস্টেরনের মাত্রা বাড়াতেও সহায়ক এবং যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। অতিরিক্ত পটাশিয়ামের অভাবে ত্বক রুক্ষ হয়, কলা সেই পটাশিয়ামের অভাব পূরণ করে দেয়। বাদাম ও বিভিন্ন বীজ ঃবাদাম এবং বীজ জাতীয় খাবার বিশেষ করে চিনা বাদাম, কাজু বাদাম, পেস্তা বাদাম, কুমড়োর বীজ, সূর্যমূখীর বীজ, ইত্যাদিতে শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট আছে যা শরীরে উপকারী কোলেস্টেরল তৈরী করে। সেক্স হরমোন গুলো ঠিক মতো কাজ করার জন্য এই কোলেস্টেরল অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। তাছাড়া এই খাবার গুলি জিঙ্ক-এর অন্যতম সেরা প্রাকৃতিক উত্‍স। এই জিঙ্ক টেস্টোস্টেরোনের মাত্রা বাড়ায় এবং যৌন ইচ্ছা বাড়ানোতেও এদের কার্যকারিতা অনেক। তৈলাক্ত মাছ ঃতৈলাক্ত মাছে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড থাকে যা স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী। ওমেগা ৩ ফ্যাটি মস্তিষ্কে উদ্দীপনা জাগিয়ে তোলে, শরীরের রক্ত চলাচল বৃদ্ধি পায় এবং গ্রোথ হরমোনের নিঃসরন হয়। ফলে যৌন স্বাস্থ্য ভালো থাকে এবং যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। সামুদ্রিক মাছেও প্রচুর পরিমাণে ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড থাকে। ডার্ক চকোলেট ঃখয়েরি রং এর ডার্ক চকোলেটে আছে ফেনিলেথ্যালামাইন নামক একটি উপাদান যা শরীরে বাড়তি যৌন উদ্দীপনা তৈরী করে। এছাড়াও ডার্ক চকোলেটে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আছে। গরুর মাংস ঃ গরুর মাংসে প্রচুর জিঙ্ক থাকে। তাই মিলনকে আরও আনন্দময় করতে কম ফ্যাটযুক্ত গরুর মাংস খান। শিমের বীচি ঃশিমের বীচিতে প্রচুর ফাইটোস্ট্রোজেন থাকে। এটা আপনার যৌন ইচ্ছা এবং যৌন সামর্থ্য বাড়ায়। জাপানিরা যৌন ইচ্ছা বাড়ানোর জন্য খাবারে প্রচুর শিমের বীচি ব্যবহার করে থাকে। খেজুর ঃখেজুর খেলে দ্রুত দেহের শক্তি বৃদ্ধি পায়। যৌন শক্তির সঙ্গে খোরমা খেজুরের বিশেষ সম্পর্ক রয়েছে। মধু ঃযৌন শক্তি বৃদ্ধি এবং যৌবন ধরে রাখার শ্রেষ্ঠ উপাদান হল মধু। মধু হাজারো রকম ফুল ও দানার নির্যাস। মধুর রয়েছে অসংখ্য উপকারিতা। মধু খেলে মস্তিস্ক শক্তি লাভ করে। দেহের স্বাভাবিক শক্তি তৈরি হ্য়। রসুন ঃনারী পুরুষ উভয়েরই দৈহিক উদ্দীপনা বাড়াতে রসুনের পুষ্টিগুণের কার্যকারিতা সর্বজনস্বীকৃত। রসুনে রয়েছে এলিসিন নামের উপাদান যা দৈহিক ইন্দ্রিয়গুলোতে রক্তের প্রবাহ বাড়িয়ে দেয়। দৈহিক সমস্যা থাকলে এখনই নিয়মিত রসুন খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও