প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এই ধরনের সমস্যাগুলি এলার্জি কিংবা চর্মরোগ এর কারনে হতে পারে।প্রতিদিন নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম মেনে চললে এসব সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। যেমনঃ১। এলার্জি হয় এমন খাবার, যেমনঃ বেগুন, কচু, মিষ্টি কুমড়া, কচুর শাক, হাসের ডিম, সামুদ্রিক মাছ, গরুর মাংস কম খেতে হবে।২। প্রতিদিন পরিষ্কার অন্তর্বাস ব্যবহার করুন। প্রতিদিন নতুন অন্তর্বাস পরুন সম্ভব না হলে একদিন ব্যবহারের পরেই ধুয়ে পরিষ্কার করে ভালো ভাবে রোদে শুকিয়ে নিন। অন্তর্বাস ধুয়ে পরিষ্কার করে রাখুন। সুতির অন্তর্বাস পরিধান করুন। মনে রাখবেন অন্য কারো প্যান্ট, অন্তবাস পরিধান করা থেকে বিরত থাকুন।৩। টয়লেট ব্যবহারের পর করনীয়ঃ আক্রান্ত স্থান যথা সম্ভব শুষ্ক রাখার চেষ্টা করুন। প্রত্যেক বার টয়লেট ব্যবহারের পর বেশি করে পানি ব্যবহার করার সাথে সাথে মুছে আক্রান্ত স্থান শুষ্ক রাখা।৪। বেশী টাইট পোশাক পরবেন না। গোপন অঙ্গে চুলকানি হলে ঢিলেঢালা পোশাক পরাই সবচাইতে ভালো।৫। গোপনাঙ্গের এবং অন্ডকোষ এর আশেপাশের পশম পরিষ্কার রাখবেন। কিন্তু এগুলা সেভ করা যাবেনা, ট্রিমার দিয়ে বা কাচি দিয়ে কেটে ফেলবেন।৬। চুলকানি রোগ থাকা অবস্থায় আপনার বিছানাপত্র আলাদা করে রাখুন। এই রোগ সেরে গেলে বিছানাপত্র জামা কাপড় কড়া রোদে শুকিয়ে নিবেন যাতে অন্য কেউ আক্রান্ত না হয়।আবার অনেক সময় এসব সমস্যা ছত্রাকজনিত চর্ম রোগ থেকেও হতে পারে। যা একবার হলে যদি দ্রুত চিকিৎসা নেয়া হয় তাহলে ভাল হয়ে যায়।কিন্তু কিছু বিষয় খেয়াল রাখার আছে। যেমনঃ১। ক্ষতস্থান বা আক্রান্ত স্থানে সাবান বা শ্যাম্পু লাগানো যাবে না। সাধারণ সাবান, শ্যাম্পু এই রোগগুলো আরো বাড়িয়ে দেয়।এ রোগের ক্ষেত্রে ওষুধ দেওয়া আলাদা সাবান ও শ্যাম্পু পাওয়া যায়। সামগ্রিকভাবে এক মাস বা দুই মাসের জন্য ওই সময়ে অন্য সাবান, শ্যাম্পু বন্ধ রেখে, এইসব বিশেষ সাবান বা শ্যাম্পু ব্যবহার করতে হয় । এতে কোনো ক্ষতি করবে না। সাবান-শ্যাম্পুর কাজও হয়ে যায়।২। আবার খুব বেশি চুলকাবেন না। যত বেশি চুলকাবেন ততই তা শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে পড়বে। এছাড়া এটি আপনার অভ্যাসে পরিণত হয়ে যাবে, ফলে যখন তখন বিব্রতকর অবস্থায় পরতে হবে।কিন্তু কিছু কিছু ক্ষেত্রে উপরোক্ত নিয়মগুলি মেনে চললেও এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়না। সেক্ষেত্রে চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ এর পরামর্শ নিতে হবে। ছত্রাক জনিত চর্মরোগ হলে সেক্ষেত্রে মলম দিতে হয়। আবার এটা পুরো শরীর এ ছড়িয়ে পরলে তখন শুধু মলম এ হয়না। তখন বেশি কিছু দিনের জন্য মুখের ওষুধ ও খেতে হয়।তাই আপনি আপনার ডাক্তার এর পরামর্শ মত ওষুধ গ্রহন করতে হতে হবে।আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও